ওসামা বিন মুহাম্মাদ বিন আওয়াদ বিন লাদেন (আরবি: أسامة بن محمد بن عوض بن لادن;) সৌদি আরবের রিয়াদ শহরে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ইয়েমেন বংশোদ্ভূত মুহাম্মাদ বিন আওয়াদ বিন লাদেনের পুত্রদের মধ্যের ‌‍‍‍‌একজন‌। সৌদি রাজ পরিবারের সাথে তার ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিল এবং মুহাম্মাদ বিন লাদেনের দশম স্ত্রী ছিলেন সিরিয়ান হামিদা আল আত্তাস । মাঝে মাঝে তাকে আলিয়া গানেম নামেও ডাকা হয় ।

আল কায়েদা নামের একটি ইসলামিক জঙ্গি সংগঠন এর আমির ও একইসাথে জঙ্গি সংগঠন আল কায়েদা এর প্রতিষ্ঠাতা করেন  । ২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর আমেররিকায় টুইন টাওয়ারে হামলার কারনে বহুলভাবে পরিচিত হয়ে  পরেন। অন্য কয়েকজন ইসলামী জঙ্গির সাথে মিলে ওসামা বিন লাদেন দুইটি ফতোয়া জারি করেন; একটি ১৯৯৬ সালে, অন্যটি ১৯৯৯ সালে। তার ফতোয়াটি ছিল, ধর্মপ্রাণ মুসলিমদের উচিত মার্কিন সামরিক ও বেসামরিক জনগণকে হত্যা করা যতক্ষণ না যুক্তরাষ্ট্র ইসরাইলের প্রতি  সহায়তা বন্ধ না করে এবং মধ্যপ্রাচ্যসহ সকল মুসলিম দেশ থেকে সামরিক শক্তি অপসারণ করে।

মৃত্যু ঃ  ২০১১ এর ২ মে এর মধ্য রাএি পাকিস্তানের আ্যবোটাবাদ শহরে মার্কিন কমান্ডোদের হামলায় (Operation Geronimo) ওসামা বিন লাদেনের মৃত্যু হয় । গোপনসূত্রে খবর পেয়ে মার্কিন কমান্ডোরা ২টি হেলিকপ্টারযোগে লাদেনের বাসস্থানে  হামলা চালায়। পাকিস্তান সেনাবাহিনী  একাডেমির মাত্র ১০০০ ফুট দূরে লাদেনের এই গোপন আস্তানাটি ২০০৫ সালে নির্মাণ করা হয়। এখানে লাদেন তার কনিষ্ঠা স্ত্রী এবং পুত্র সহ বাস করতেন। তার মরদেহ ইসলামী প্রথানুসারে  আরব সাগরে দাফন করা হয়।