শ্যামল মিত্র (১৪ জানুয়ারি ১৯২৯ – ১৫ নভেম্বর ১৯৮৭) পশ্চিম বাংলার এক প্রখ্যাত গায়ক , সুরকার ও সঙ্গীত শিল্পী। পঞ্চাশ ও ষাটের দশকের সবচেয়ে জনপ্রিয় গায়কদের অন্যতম।

শ্যামল মিত্র এর জীবনী

শ্যামল মিত্র ছিলেন আধুনিক বাংলা গানের স্বর্ণযুগের অন্যতম শ্রেষ্ঠ একজন সংগীতশিল্পী, সুরকার এবং প্রযােজক। হিন্দি, অহমিয়া ও ওড়িয়া ছবিতেও তিনি গান গেয়েছেন। কৈশােরেই গণনাট্য এবং সলিল চৌধুরীর সংস্পর্শে আসেন এবং ভগিনী রেবার সঙ্গে ও আলাের পথ যাত্রী” গানটিতে কণ্ঠ দান করেন। ১৯৪৯-এ সুনন্দার বিয়ে ছবিতে নেপথ্য শিল্পী হিসেবে আত্মপ্রকাশ করলেও ১৯৫২ সালে সুধীরলাল চক্রবর্তীর মৃত্যুর পর গাওয়া ‘স্মৃতি তুমি বেদনার গানটি তাকে খ্যাতির তুঙ্গে তুলে দেয়। সংগীত পরিচালক হিসাবে শতাধিক ছবিতে তিনি কাজ করেছেন, এর মধ্যে যমালয়ে জীবন্ত মানুষ, লাস, দেয়া-নেয়া, ভানু গােয়েন্দা জহর অ্যাসিস্ট্যান্ট, বনপলাশীর পদাবলী, অমানুষ, আনন্দ আশ্রম, ধনরাজ তামাং, কলঙ্কিনী, কেনারাম-বেচারাম প্রভৃতি বিশেষ উল্লেখযােগ্য। তার কণ্ঠে গানে ভুবন ভরিয়ে দেবে’, “আমার স্বপ্নে দেখা রাজকন্যা’, ‘আমি তােমার কাছেই ফিরে আসব’, ‘তিনটি মন্ত্র নিয়ে যাদের জীবন, ‘এই সুন্দর পৃথিবী ছেড়েইত্যাদি গান বাঙালি সংস্কৃতির অঙ্গীভূত হয়ে গেছে।

এটিও পড়ুন –

সংগীতশিল্পী এবং সংগীত পরিচালক হিসেবে মানবেন্দ্র মুখােপাধ্যায় ছিলেন আধুনিক বাংলা গানের স্বর্ণযুগের অন্যতম প্রধান স্থপতি। শৈশবেই কাকা সিন্েশবর ও রত্নেশ্বর মুখােপাধ্যায়ের কাছে শাস্ত্রীয় সংগীত এবং কীর্তনের তালিম নেন। ১৯৫৩ সালে নাই চন্দনলেখা শ্রীরাধার চোখে নাই নাই শ্যামরাই’ গানটি ডিস্ক আকারে বের হওয়া মাত্র শ্রোতাদের মনােযােগ আকর্ষণ করে। তার অন্যান্য গানের মধ্যে এমনি করে পড়বে মনে’, ‘ঘুমায় না সহেলি গাে’, আমি পারিনি, বুঝিতে পারিনি, ‘ময়ূরকণী রাতের নীলে’, ‘তারই চুড়িতে মন রেখেছি’, ‘যদি আমাকে দেখাে তুমি উদাসীন প্রভৃতি এবং তার নিজের সৃষ্ট আমি এতাে যে তােমায় ভালােবেসেছি’ গানটি বাঙালির স্মৃতির মণিকোঠায় চিরভাস্বর হয়ে থাকবে। তার নির্দেশনায় বিভিন্ন ছবির সংগীতের মধ্যে মণি আর মানিক (১৯৫৪), ধুলার ধরণী (১৯৫৪), অনুষ্টুপ ছন্দ (১৯৬৪), উত্তর পুরুষ (১৯৬৬), জয়জয়ন্তী (১৯৭১), দেবী চৌধুরানী (১৯৭৪), ইন্দিরা (১৯৮৩) প্রভৃতি বিশেষউল্লেখযােগ্য। নজরুলগীতিতেও তারঅসামান্য প্রতিভার প্রকাশ ঘটেছে। তার গাওয়া স্মরণীয় নজরুলগীতিগুলি হল- ‘গাহাে নাম অবিরাম’, ‘তােমারেই আমি চাহিয়াছি প্রিয়, ‘মাের প্রিয়া হবে এসাে রানী, ‘কুহু কুহু কোয়েলিয়া প্রভৃতি।

গুরুত্বপূর্ণ তথ্য 
জন্মঃ ১৪ জানুয়ারি ১৯২৯
মৃত্যুঃ ১৫ নভেম্বর ১৯৮৭

জাতীয়তাঃ

বয়সঃ
সমাধিঃ
অন্যান্য নামঃ
পেশাঃ প্রখ্যাত গায়ক , সুরকার ও সঙ্গীত শিল্পী।
পিতা- ডঃ সাধন কুমার মিত্র (Dr. Sadhan Kumar Mitra)
মাতাঃ
স্ত্রী/স্বামী- প্রতিমা মিত্র

পুত্র / কন্যঃ  সৈকত মিত্র।

উল্লেখযোগ্য পুরস্কারঃ

পরিচিতির কারণঃ প্রখ্যাত গায়ক , সুরকার ও সঙ্গীত শিল্পী।