জালালুদ্দিন মুহাম্মদ আকবর ( AkbarMughal Emperor) ভারতের সর্বশ্রেষ্ঠ শাসক । আকবর বিশ্বের ইতিহাসের অন্যতম শ্রেষ্ঠ শাসক হিসেবেও পরিচিত। তিনি ছিলেন মুঘল সাম্রাজ্যের তৃতীয় সম্রাট। তার পিতা সম্রাট হুমায়ুনের মৃত্যুর পর, আকবর ১৫৫৬ সালে ১৩ বছর বয়সে ভারতের শাসনভার গ্রহণ করেন। বৈরাম খানের তত্ত্বাবধানে তিনি সমগ্র দক্ষিণ এশিয়ায় তার সাম্রাজ্য বিস্তার করতে থাকেন। ১৫৬০ খ্রিস্টাব্দে আকবর নিজেই বৈরাম খানকে অপসারণ করে সমস্ত ক্ষমতা নিজের হাতে নেন। কিন্তু আকবর ভারত ও আফগানিস্তানে তার সাম্রাজ্য বিস্তার করতে থাকেন। ১৬০৫ সালে তার মৃত্যুর আগ পর্যন্ত প্রায় সমগ্র উত্তর ভারত তার শাসনাধীনে চলে আসে। আকবরের মৃত্যুর পর তার পুত্র সম্রাট জাহাঙ্গীর ভারতের শাসনভার গ্রহণ করেন।

Akbar Mughal Emperor

মোঘল সম্রাট আকবর গুরুত্বপূর্ণ কিছু তথ্যঃ

গুরুত্বপূর্ণ তথ্য:

নাম ((Name)) মির্জা আব্দুল ফত্হ জালালুদ্দিন মুহাম্মদ আকবর
ইংলিশ নাম (English Name) Abu’l-Fath Jalal-ud-din Muhammad Akbar
ছদ্মনাম (Nick Name)
জন্ম (Birth) ১৫ অক্টোবর ১৫৪২
জন্ম স্থান (Birth Place) উমারকত, পাকিস্তান (Umarkot, Pakistan)
বাবার নাম (Father Name)
হুমায়ুন
মায়ের নাম (Mother Name) হামিদা বানু বেগম
ভাষা
পড়াশোনা (Educatriuon)
কর্মজীবন (Occupations)  মোঘল সম্রাট
স্ত্রী /  স্বামী (Wife/ Husband) মরিয়ম-উজ-জামানি বেগম, রুকাইয়া সুলতান, বেগম, সেলিমা সুলতান বেগম, বেগম রাজ,কানয়ারি বাই, বেগম নাথি বাই, কুশমিয়া বানু বেগম, বিবি দৌলত শাদ বেগম
রাজিয়া সুলতান বেগম, আরোও পাঁচজন স্ত্রী
সন্তান (Childrens) জাহাঙ্গির (Jahangir), শাকারউন নিসা বেগম (Shakr-un-Nissa Begum), ডেনিয়েল মিরজা (Daniyal Mirza)
ধর্ম (Religion)
দীন-ই-ইলাহি
জাতীয়তা (Nationality)
মৃত্যু (Death) ১৬০৫ , সিকান্দ্রা, আগ্রা
উল্লেখযোগ্য রচনাবলি ()
উল্লেখযোগ্য পুরস্কার (Prize)
জীবন কাল (Age)  ৬৩ সাল

সাম্রাজ্যের রাজপুতদের সাথে সুসম্পর্ক বজায় রাখার স্বার্থে আকবর বিভিন্ন রাজবংশের রাজকন্যাদের বিয়ে করেন। তবে তার স্ত্রীদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি আলোচিত হলেন যোধা বাই।

আকবর রাজ্য শাসনের জন্য আমলাতন্ত্র চালু করেন এবং প্রদেশগুলিকে স্বায়ত্তশাসন দেন। আকবরের আমলাতন্ত্র বিশ্বের সবচেয়ে দরকারী আমলাতন্ত্রের একটি। তিনি প্রতিটি অঞ্চলে সামরিক শাসক নিয়োগ করেছিলেন। প্রতিটি শাসক স্বায়ত্তশাসিত প্রদেশের সেনাবাহিনীর দায়িত্বে ছিলেন। সম্রাট আকবর শাসিত সাম্রাজ্যে ক্ষমতার অপব্যবহারের একমাত্র শাস্তি ছিল মৃত্যু। তিনি প্রতিটি অঞ্চলে সামরিক শাসক নিয়োগ করেছিলেন। প্রতিটি শাসক স্বায়ত্তশাসিত প্রদেশের সেনাবাহিনীর দায়িত্বে ছিলেন। সম্রাট আকবর শাসিত সাম্রাজ্যে ক্ষমতার অপব্যবহারের একমাত্র শাস্তি ছিল মৃত্যু।

এটিও পড়ুন –বাল গঙ্গাধর তিলক এর জীবনী । Bal Gangadhar Tilak

আকবর বুঝতে পেরেছিলেন যে রাজকুমার শত্রু হিসাবে শক্তিশালী কিন্তু মিত্র হিসাবে নির্ভরযোগ্য। আকবরের রাজত্বকালে তিনি রাজপুতদের সাথে শান্তি স্থাপনের চেষ্টা করেন। তিনি আংশিক যুদ্ধের মাধ্যমে এবং আংশিকভাবে বিবাহের মাধ্যমে এই প্রচেষ্টায় সফল হন। তিনি অম্বরের রাজা ভর মল্লের কন্যা যোধাবাকে বিবাহ করেন। ভর মল্লের পুত্র রাজা ভগবান দাস ছিলেন আকবরের সমাবেশে নবরত্নদের একজন। ভগবান দাসের পুত্র রাজা মান সিং ছিলেন আকবরের বিশাল সেনাবাহিনীর সেনাপতি। রাজা টোডর মল্ল আকবরের অর্থমন্ত্রী ছিলেন। আরেক রাজপুত বীরবল ছিলেন আকবরের সবচেয়ে কাছের বন্ধু এবং প্রিয়। যখন অধিকাংশ রাজপুত রাজ্য আকবরের অধীনে চলে আসছিল, তখন মেওয়ারের একমাত্র রাজপুত রাজা মহারানা উদয় সিং মুঘলদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ান। চিত্তোর পতনের পর তিনি উদয়পুরে পালিয়ে যান এবং সেখান থেকে রাজপুতদের সমাবেশ করার চেষ্টা করেন। তাঁর পুত্র মহারানা প্রতাপ সিং সারা জীবন মুঘলদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করেছেন। যদিও প্রতাপ আকবরের কথা অমান্য করেন, আকবরের চিতওয়ার দুর্গে আক্রমণের পর তিনি পালিয়ে যান এবং উদয়পুরে রাজ্য প্রতিষ্ঠা করেন। আর কখনো রাজপুতদের ঐক্যবদ্ধ করেনি। এছাড়াও প্রতাপ সিং চিত্তোর দুর্গ পুনরুদ্ধার করতে পারেননি। মেবার রাজপুতরাই ছিল একমাত্র রাজপুত জাতি যারা রাজ্য হারায় এবং দরিদ্র হয়ে পড়ে, তবুও আকবরের আনুগত্য স্বীকার করেনি। আকবর প্রতাপের বোন কওমকে বিয়ে করতে চেয়েছিলেন কিন্তু পারেননি।

আকবর তার ধর্মীয় দৃষ্টিকোণ থেকে দীন-ই-ইলাহীর পরিচয় দেওয়ার চেষ্টা করেছিলেন।

আকবরের দরবারীদের মধ্যে যারা নবরত্ন নামে বিখ্যাত হয়েছিলেন – রাজা টোডারমালী,তানসেন, বীরবলী, আবুল ফজলি, কবি ফাজিক, আব্দুল রহিম খান, ফকির আজিউদ্দিন, জেনারেল মানসিংহ, মোল্লা দো-পিয়াজা